ফ্যাটি লিভারের সমস্যায় ভুগছেন?

ফ্যাটি লিভারের সমস্যায় ভুগছেন?

পুরো বিশ্বজুড়ে ফ্যাটি লিভার অনেক সাধারণ একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। নানা কারণে হতে পারে এই ফ্যাটি লিভারের সমস্যা।

গবেষণা অনুযায়ী আনুমানিক ২৫% মানুষ ফ্যাটি লিভারের সমস্যার সম্মুখীন হয়। ফ্যাটি লিভার শুধুমাত্র অ্যালকোহলিক নয়, নন অ্যালকোহলিক দেরও হয়ে থাকে। লিভারে ফ্যাট জমে গেলে তা মারাত্মক বিপদজনক একটি বিষয়।

ফ্যাটি লিভারের কিছু কারণ হচ্ছে-

  • স্থুলতা
  • অতিরিক্ত বেলি ফ্যাট
  • ইনসুলিন রেজিসট্যাঁন্স
  • প্রতিবন্ধী স্বাস্থ্য

কিন্তু তার মানে এই নয় যে এর কোন সমাধান নেই। ফ্যাটি লিভারকে নিয়ন্ত্রণ বা কমিয়ে আনার জন্য কিছু খাবার আপনারা আপনাদের ডায়েটে যোগ করতে পারেন।

১। গ্রিন টিঃ

ওজন বা ফ্যাট কমাতে গ্রিন টির কোন তুলনা হয়না। নিয়মিত যদি ডায়েটে এক বা দুই কাপ গ্রিন টি খেয়ে থাকেন তাহলে চর্বি জমার কোন সুযোগ নেই। আর তার পাশাপাশি এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা লিভারের কার্যকারিতা ঠিক রাখে।

২। সামুদ্রিক মাছঃ

সামুদ্রিক মাছ যেগুলোতে প্রচুর ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড রয়েছে যা আপনার লিভারকে ভালো রাখবে/লিভারের উন্নতি করতে সাহায্য করে। এসব মাছের প্রাকৃতিক উপাদান শরীরের ফ্যাট কমায়। মাছ যদি আপনার প্রিয় না হয়ে থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শে আপনি ওমেগা ৩ সাপ্লিমেনট ও খেতে পারেন।

৩। অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডো স্বাস্থ্যকর ফলের মধ্যে একটি। এই ফল আপনার লিভার থেকে অস্বাস্থ্যকর চর্বি দূর করে এবং লিভারের ক্ষতি কমায়। এই ফলে থাকা উচ্চ ফাইবার বিপাকক্রিয়া উন্নত করে।

৪। কফি

কফিতে প্রচুর মাত্রায় ক্যাফেইন থাকলেও ফ্যাটি লিভারের সমস্যার জন্য কফি অনেক বেশি উপকারী। এতে আছে বিভিন্ন উপকারী উপাদান যা লিভারের ক্ষতিকারক এনজাইম দূর করে। আর যদি আপনি ভালো ফল পেতে চান তাহলে দিনে ২ কাপ কফি খেতে পারেন।

৫। অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েলে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লিভারে জমে থাকা মেদ ঝরাতে একটি বড় ধরনের ভূমিকা রাখে। গবেষণায় এটি প্রমাণিত হয়েছে যে অলিভ অয়েল লিভারের এনজাইমের স্তর হ্রাস করে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

৬। জাম্বুরা

জাম্বুরা সবার প্রিয় আর এই রসালো ও সুস্বাদু জাম্বুরা আমাদের ক্ষতিগ্রস্ত ফ্যাটি লিভারের সেল কে ঠিক রাখতে সাহায্য করে। এতে রয়েছে ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা শরীরের টক্সিন বের করতে সাহায্য করে।

৭। আখরোট

আখরোটের মধ্যে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে যা প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। যাদের লিভারে ফ্যাট নেই তারাও তাদের ডায়েটে এই ফল রাখতে পারেন।

 

যদি আপনার ফ্যাটি লিভার থেকে থাকে তাহলে এর থেকে মুক্তি পাবার জন্য কিছু খাবার এড়িয়ে চলতে হবে, যেমন – অ্যালকোহল, অতিরিক্ত চিনি, শুকনো খাবার, লবণ, ভাত, পাস্তা ও লাল মাংস।

যাদের ফ্যাটি লিভার তাদের প্রতিদিন সর্বমোট ১৮০০/ কিলো ক্যালরি খাওয়া উচিত। আয়রন ১৭ মিগ্রা, টোটাল ফ্যাট ২০ মিগ্রা, ক্যালসিয়াম ৬০০ মিগ্রা, সোডিয়াম ১২০০ মিগ্রা, কার্বোহাইড্রেট ৪২০ গ্রাম এবং প্রোটিন ৮০ গ্রাম।

তবে হ্যাঁ, এটা মনে রাখতে হবে যে আপনার শারীরিক চাহিদা, শারীরিক পরিশ্রমের পরিমাণ, উচ্চতা এবং ওজনের উপর ভিত্তি করে ডায়েট করতে হবে।

 সূত্রঃ ইন্টারনেট

Leave A Reply